১৬০ কিমি প্রতি ঘণ্টা গতিবেগের পাহাড়ি ঝোড়ো হাওয়ায় টিকে থাকে ছাগল!

0
1948

নিজস্ব প্রতিবেদন ১৭.১০.২০২০:

মাউন্টেন গোট যার বিজ্ঞ্যান সম্মত নাম Oreamnos americanus  মুলত উত্তর আমেরিকার একটি প্রাণী। নামে গোট থাকলেও বাকি প্রজাতির ছাগলদের থেকে আকারে ও অভ্যাস অনেকটাই আলাদা। পর্বত ছাগলটি আর্টিওড্যাক্টিলা এবং বোভিডে পরিবারের একক-টোড অংগুলেট যার মধ্যে হরিণ, গাজেল এবং গবাদি পশু রয়েছে। এটি প্রকৃত ছাগল, বন্য মেষ, ছোমাইস, কস্তুরী এবং অন্যান্য প্রজাতির সাথে সাবফ্যামিলি ক্যাপরিনির অন্তর্গত। পাহাড়ী ছাগলের বোন বংশের না হলেও হিমালয় অঞ্চলের টাকিনগুলি তবুও খুব নিবিড়ভাবে সম্পর্কিত এবং পাহাড়ের ছাগলের সাথে প্রায় সমবায়; তারা পূর্বপুরুষ ছাগল থেকে সমান্তরালে বিবর্তিত। 
এই দলের অন্য সদস্যরা হলেন সিউডোইস "নীল ভেড়া", আসল ছাগল এবং হিমালয়ের তাহর। পর্বত ছাগল সম্ভবত প্রায় ৭.৫ থেকে ৮ মিলিয়ন বছর পূর্বে টরটোনিয়ানের শেষ দিকে তাদের আত্মীয়দের কাছ থেকে সরিয়ে নিয়েছিল।বয়সে ৩০ মাসে পৌঁছলেই একটি মাউন্টেন গোট প্রজননে সক্ষম হয়। 
মোটামুটি অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত চলে এদের প্রজননকাল। প্রজননের সময় পেরোলেই পুরুষ আর মেয়ে মাউন্টেন গোট আলাদা আলাদা দলে বিভক্ত হয়ে যায়।অত্যন্ত প্রতিকূল আবহাওয়ায় টিকে থাকার জন্য মাউন্টেন গোটের শরীর পুরু পশমে ঢাকা থাকে।একটি পূর্ণ বয়স্ক মাউন্টেন গোটের শরীর থেকে বছরে প্রায় ৪০ কেজি উল পাওয়া যায়। তবে তাই বলে উলের প্রয়োজনে মাউন্টেন গোটের চাষ করা সম্ভব নয়। কারণ, এরা একেবারেই পোষ মানে না। তাই উলের যোগানের জন্য বাণিজ্যিক ভাবে এদের কাজেও লাগানো যায় না।
 অত্যন্ত প্রতিকূল পরিবেশেও টিকে থাকতে পারে এই প্রজাতীর ছাগল। খাবারের খোঁজে প্রতিদিন প্রায় ১৩ হাজার ফুট উঁচু পাহাড়ে অবলীলায় চড়ে যায় এই ছাগল! এ কোনও সাধারণ ছাগল নয়, এর নাম মাউন্টেন গোট।  মাউন্টেন গোট আকার, আয়তনে গ্রাম বাংলার পথে-ঘাটে ঘুরে বেড়ানো ছাগলের চেয়ে বেশ খানিকটাই বড়। সদ্যোজাত মাউন্টেন গোটের ওজনও প্রায় ৩ কেজি হয়। একটি মাউন্টেন গোট জন্মের ৪-৫ ঘণ্টার মধ্যেই পাহাড়ে চড়ার চেষ্টা শুরু করে দেয়। এই প্রজাতির ছাগলের ওজন ৪৫ কেজি থেকে ১৪০ কেজি পর্যন্ত হয়। মাইনাস ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রাই হোক বা ১৬০ কিমি প্রতি ঘণ্টা গতিবেগের ঝোড়ো হাওয়ার ধাক্কা— এ সব ঝড়-ঝাপটা সামলেও টিকে থাকতে পারে এই মাউন্টেন গোট। এরা সাধারণত ১২ থেকে ১৫ বছর বাঁচে। তবে এদের বেশির ভাগেরই মৃত্যু হয় দুর্ঘটনায়। খাবারের খোঁজে যে ভাবে খাড়া ঢাল বেয়ে পাহাড়ের হাজার হাজার ফুট উঁচুতে চড়ে যায় এই মাউন্টেন গোট তা রীতিমতো অবাক করেছে তুখোড় পর্বোতারোহীদেরও!
Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here