ঘূর্ণিঝড়ের জন্য পিছোতে পারে বর্ষা

0
5

ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় আম্পানের কারণেই কিছুটা পিছিয়ে যেতে পারে বর্ষা। আগামী ৫ তারিখ কেরলে ঢুকতে পারে মৌসুমি বায়ু। মঙ্গলবার বিকেলে এই পূর্বাভাসই দিলেন মৌসম ভবনের ডিজি মৃত্যুঞ্জয় মহাপাত্র। সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘১৯৯৯–এর পর বঙ্গোসাগরের উপর তৈরি হওয়া এটা দ্বিতীয় প্রবল সুপার সাইক্লোন। এখন ঝড়ের গতিবেগ, ঘণ্টায় ২০০–২৪০ কিলোমিটার এবং এটা উত্তর–উত্তরপশ্চিমে সরছে।

বুধবার বিকেল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে আরও উত্তর–উত্তরপূর্বে সরে, সুন্দরবনের খুব কাছ দিয়ে পশ্চিমবঙ্গের দিঘা এবং বাংলাদেশের হাতিয়া উপকূলের উপর দিয়ে বয়ে যেতে পারে। পশ্চিমবঙ্গের দুই ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুর জেলাতেই সব চেয়ে ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা। কলকাতা, পশ্চিম মেদিনীপুর, হাওড়া এবং হুগলিতে ঘণ্টায় ১১০–১২০ কিলোমিটার বেগে হাওয়া বইতে পারে।’‌  এনডিআরএফ–এর প্রধান এসএন প্রধান বললেন, ‘‌এনডিআরএফ–এর ১৫টা দল ওডিশায় এবং ১৯টা দল পশ্চিমবঙ্গে মোতায়েন আছে।

দুটি দলকে স্ট্যান্ড বাই করে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এছাড়া অতিরিক্ত ছয়টি ব্যাটেলিয়ন প্রস্তুত আছে। প্রতিটি ব্যাটেলিয়নে চারটে করে দল, অর্থাৎ মোট ২৪টা দল তৈরি আছে। সব দলেরই সামরিক বিমানবন্দর আছে এবং বাহিনী রয়েছে, যাতে স্বল্পমেয়াদের নোটিসেই বিপর্যয় মোকাবিলায় তারা পৌঁছে যেতে পারে।’‌
টেলিকম সচিব অংশু প্রকাশ সাংবাদিক সম্মেলনে বললেন, টেলিকম সার্ভিস প্রোভাইডারদের সব জেলায় পর্যাপ্ত পরিমাণে জেনারেটর সেট এবং জ্বালানি প্রস্তুত রাখতে বলা হয়েছে যাতে কোথাও যদি বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় তাহলে ওই জেনারেটরের মাধ্যমে টেলিফোন টাওয়ারের সংযোগ যেন দ্রুত ঠিক করা যায়।

যে যে জেলাগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে সেই সব জেলায় এসএমএস–এর মাধ্যমে স্থানীয় ভাষায় সতর্কবার্তা পাঠানো হয়েছে এই বলে যে, সবাই যেন নিরাপদ স্থানে চলে যান। রাজ্য সরকারগুলি কোন ফ্রিকোয়েন্সিতে সতর্কবার্তা পাঠাবে তা তাদের উপরই ছেড়ে দিয়ে টেলিকম সচিব বলেছেন, ঝড় পেরিয়ে যাওয়ার পর ইনট্রা–সার্কল্‌ রোমিং চালু হবে।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here