বেহালায় তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠিত হল মানব বন্ধন অনুষ্ঠান

0
108

নিজস্ব সংবাদদাতা , ০৭/০২/২০২০

তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী ও সমর্থকরা বেহালা পশ্চিমে CAA ও NRC-এর বিরোধীতা করে ৫ ই ফেব্রুয়ারী ঠাকুরপুকুর থেকে বেহালা পর্যন্ত মানব বন্ধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে । সাধারণ মানুষ যারা caa ও nrc-এর বিরোধী তারাও একসাথে পথের ধারে দাঁড়িয়ে মানব বন্ধন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছেন । এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব ও শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় । এক সাংবাদিক বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রীকে সাংবাদিকদের প্রশ্নের স্পষ্ট উত্তর দিতেও শোনা যায় । এক সাংবাদিক বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “আজ লোকসভায় দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঘোষণা করেছেন রাম মন্দির ট্রাস্ট গঠন করার কথা, যেখানে আর দুদিন বাদেই দিল্লিতে নির্বাচন এবং ৯ ই ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ঘোষণার সময়সীমা ছিল, তড়িঘড়ি আজ ঘোষণা করা হলো ।” এটা কি কোন রাজনৈতিক কৌশল বলে মনে করেন ? সাংবাদিকদের এই প্রশ্নের উত্তরে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ” ওনারা চিরকালই রাজনীতির কৌশল এর জন্যই সবকিছু করেন, মানুষের উপকারের জন্য কটা কাজ করেছেন লিখিত দিতে পারবেন? দিতে পারবেন না। তাছাড়া মমতা ব্যানার্জি ফিরলে রাম মন্দিরের ইস্যুগুলো দলে আলোচনা করা হবে, তারপরে যা সিদ্ধান্ত হবে তা আপনাদের জানাবো ।” বাজেট অধিবেশনে রাজ্যপাল জগদীপ ধানকারের বক্তব্য নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “রাজ্যপাল রাজ্যপালের কথা বলেছেন, আমরা সেটাকে কিভাবে ক্রস করবো সেটা আমাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার । আর উনি কোন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব নয়,তিনি যা কিছু বলবেন, সব কিছুর উত্তর দিতে হবে, প্রত্যেকদিন যে সমস্ত কথা বলেন তাতে মনে হয় উনি রাষ্ট্রপতি উপর দিয়ে যাচ্ছেন। বাংলাকে মমতা ব্যানার্জি যেখানে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাইছে, উনিও যদি সেই কাজে সামিল হন তাহলে বাংলা সোনার বাংলা হবে । প্রতিদিন একটা না একটা বিতর্ক সৃষ্টি করছেন নানা কথা বলে। সব ব্যাপারে তো ওনার কথা বলার দরকার নেই । আমরা সাধারন মানুষের দ্বারা ভোটে জিতে সরকার গঠন করেছি । আমরা কারো মনোনীত নই। উনি যা করার করুন সেটা সবসময় না বললেই হয়। এই নিয়ে প্রতিদিন ঝগড়াঝাঁটির মধ্যে গিয়ে লাভ কী ?” প্রেসিডেন্সিতে উপাচার্য অনুরাধা লহিয়াকে রাতভোর ঘেরাও নিয়ে বলেন, “আমি ছাত্রছাত্রী, উপাচার্য এবং কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলব এ বিষয়ে । ছাত্র-ছাত্রীদের আমি অনুরোধ করব যে তাদের যদি কোনো দাবিদাওয়া থাকে তারা লিখিত দিক, আমরা সেটা দেখব । কিন্তু ঘেরাও কে আমি কোনদিনও সমর্থন করিনা । আমি নিজেও ছাত্র জীবনে কোনদিনও কাউকে ঘেরাও করিনি। অতএব এটাকে কোনো রকম ভাবে সমর্থন করা সম্ভব নয় । দাবী যদি ছাত্রদের যুক্তিযুক্ত থাকে তাহলে নিশ্চয়ই সেটা বিবেচনা করে দেখব । কিন্তু আমি ছাত্র-ছাত্রীদের আবেদন করবো ঘেরাও এর পথ থেকে যেন তারা সরে আসে । কেন্দ্রীয় সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে এক রাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “এনআরসি এখন হচ্ছেনা” । এই প্রসঙ্গে পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “এটা বিজেপির কৌশল বিজেপি, পার্টি টার নাম হচ্ছে কৌশল পার্টি । কোন কৌশলে কি করছে কেউ জানে না । আমরা কোন রকম ভাবে এনআরসি হতে দেবো না এবং এই আন্দোলন আমাদের চলছে, চলবে । আসলে বিজেপি আমাদের দেখে ভয় পেয়েছে । “

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here