গঙ্গাসাগর মেলায় অভিনব উদ্যোগ

0
18

নিজস্ব সংবাদদাতা, ১৩/০১/২০২০

গঙ্গাসাগরের ইতিহাসে বিরল ঘটনা । গঙ্গাসাগর থেকে দুই রোগীকে প্রথম এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে কলকাতায় পাঠান হল । মেলা প্রাঙ্গণে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ছটফট করতে থাকা দুই রোগীকে তুলে নিয়ে এয়ার এম্বুলেন্সে করে কলকাতায় পাঠালেন জেলা প্রশাসনের আধিকারিকরা । ফলে তীর্থ করতে এসে প্রাণে বাঁচলেন দুই তীর্থযাত্রী ।প্রশাসন সূত্রে খবর, একজনের নাম অনিমা দাস, বয়স ৫০ বছর, বাড়ি আসামে । অন্যজনের নাম বিকাশ বেজ, বয়স ৫৩ বছর, বাড়ি হাওড়া আমতাতে । দুজনই অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন গঙ্গাসাগর মেলা প্রাঙ্গণে । প্রথমে তাদেরকে অ্যাম্বুলেন্স করে নিয়ে আসা হয় সাগর হাসপাতালে । সেখানে তাদের চিকিৎসা করার পর ভর্তি করা হয় আইসিউতে । কিন্তু অবস্থার অবনতি হওয়ায় একজনকে পাঠানো হয়েছে কলকাতা এসএসকেএম হাসপাতালে । অন্যজনকে পাঠানো হয়েছে হাওড়ার হাসপাতালে । আপাতত দুজনকে সুস্থভাবে পাঠানোর পর স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে প্রশাসন । গঙ্গাসাগরের ইতিহাসে এই প্রথম গঙ্গাসাগর মেলা প্রাঙ্গণ থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স করে অসুস্থ রোগীদেরকে পাঠানো হলো কলকাতার হাসপাতালে । এর আগে অসুস্থ রোগীদের কলকাতায় নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে হেলিকপ্টার পরিষেবা চালু থাকলে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা এই প্রথম । যা রাজ্যের প্রথম কোন মেলায় ব্যবহার করা হলো । এই এয়ার অ্যাম্বুলেন্স ব্যবহারের ফলে তীর্থযাত্রীরা অনেকেই প্রাণে বাঁচবেন এমন আশা প্রশাসনের । এ বিষয়ে ডায়মন্ড হারবার জেলা হাসপাতালে মুখ্য স্বাস্থ্য অধিকর্তা ডঃ দেবাশীষ রায় বলেন, বিকাশ বেজ হাইপোথারমিয়া রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন । কিন্তু তাকে এখানে রেখে চিকিৎসা করাটা খুব অসুবিধা হচ্ছিল । অন্যদিকে অনিমা দাস এজমা রোগে আক্রান্ত, তারও সমস্যা হচ্ছিল বিভিন্নভাবে । মূলত ঠান্ডার কারণে তাদের এই সমস্যা । এয়ার অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা করে যাতে আরো বেশি মানুষকে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া যায় সেই ক্ষেত্রে নজর রেখেছে জেলা প্রশাসন । গত তিন বছর ধরে হেলিকপ্টার এর মাধ্যমে এই পরিষেবা দিয়ে আসছিল গঙ্গাসাগর মেলার প্রশাসনিক আধিকারিকরা । এবছর আর হেলিকপ্টার নয় এয়ার এম্বুলেন্সে পাঠানো হচ্ছে সরাসরি কলকাতাতে । মূলত পরিবহন দপ্তর এর তরফ থেকে এই এয়ার অ্যাম্বুলেন্স এর ব্যবস্থা করা হয়েছে গঙ্গাসাগর মেলাতে ।

এ বিষয়ে জেলা শাসক পি উলাগানাথান বলেন, দুজনেরই চিকিৎসাধীন । এয়ার অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস দেওয়ার জন্য পরিবহন দপ্তরকে অসংখ্য ধন্যবাদ । এর ফলে অনেক বেশি সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে এবং প্রাণে বাঁচবেন রোগীরা । জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে গঙ্গাসাগর মেলার জন্য জেলার বিভিন্ন হাসপাতালকে তৈরি রাখা হয়েছে দ্রুত চিকিৎসা দেওয়ার জন্য । পাঁচটি হাসপাতালকে বিভিন্ন ভাবে তৈরি করা হয়েছে বড় কোনো দুর্ঘটনার সামাল দেওয়ার জন্য । গঙ্গাসাগর মেলা হাসপাতালে বানানো হয়েছে অস্থায়ী আইসিইউ ও সিসিইউ ।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here