সহজেই চিনুন মা হওয়ার প্রাথমিক লক্ষণগুলি…

0
107

সংবাদটিভি ওয়েবপেজ

মা হওয়ার বাসনা সকল মেয়েরই থেকে থাকে কখনো না কখনো। নয় মাস গর্ভে রেখে একজন মা তার সন্তানকে পৃথিবীর আলো দেখান। কিন্তু অনেক সময় মহিলারা গর্ভধারণের বেশ কয়েক মাস পরেও বুঝে উঠতে পারেন না যে, তিনি গর্ভবতী কিনা।প্রেগন্যান্সির প্রথম তিন মাস খুব সতর্কে থাকা উচিত। চিনে নিন গর্ভধারণের প্রাথমিক লক্ষণগুলি কি কি …

গর্ভধারণের প্রাথমিক লক্ষণ:

১) প্রেগন্যান্সির প্রাথমিক পর্যায়ে শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিকের তুলনায় কিছুটা হলেও বেশি থাকে। যদি টানা ১৮ দিন শরীরের তাপমাত্রা বেশি থাকে তাহলে অবশ্যই পরীক্ষা করান। কারণ, এটি গর্ভধারণের প্রাথমিক লক্ষণ হতে পারে।

২) প্রেগন্যান্সির প্রাথমিক পর্যায়ে শরীরে হরমোনের নানা পরিবর্তন হয়। এ সময় প্রায়ই হজমে সমস্যা বা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা দেয়।

৩) পিরিয়ড বা ঋতুস্রাব সঠিক সময়ে হচ্ছে কিনা খেয়াল রাখুন। প্রতিমাসের একটি নির্দিষ্ট সময়ে মহিলাদের পিরিয়ড হয়ে থাকে (সাধারণত ২৮ দিন পর পর)। মাঝে মধ্যেই পিরিয়ড বা ঋতুস্রাব বিভিন্ন কারণে ৪-৫ দিন আগে বা পরে হতে পারে। এর চেয়ে বেশি সময় পেরিয়ে গেলে তা প্রেগন্যান্সির কারণে হতে পারে। তখন অন্যান্য লক্ষণগুলিও মিলিয়ে নিতে পারেন। পিরিয়ড বন্ধ হয়ে গেলেও প্রেগন্যান্সির শুরুর দিকে দু’-এক ফোঁটা রক্তপাত হলে ঘাবড়ে যাবেন না। এটা স্বাভাবিক ব্যপার।

৪) পিরিয়ডের সময় যদি খুব সামান্য পরিমাণ রক্তপাত হয়ে বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে এই লক্ষণটিকে মোটেই অবহেলা করবেন না। এটি গর্ভধারণের প্রাথমিক লক্ষণ হতে পারে।

আরও পড়ুন…ফলের খোসা ফেলে দেন ? জানেন ফলের খোসাতেও আছে অনেক পুষ্টিগুণ…

৫) মাঝে মধ্যেই বমি বমি ভাব, বমি হওয়া বা মর্নিং সিকনেস প্রেগন্যান্সির প্রাথমিক পর্যায়ের খুবই স্বাভাবিক সমস্যা।

৬) প্রেগন্যান্সির প্রাথমিক পর্যায়ে ঘন ঘন মুড সুইং বা মেজাজ পরিবর্তনের সমস্যা হতে পারে। এই সময় এটা খুবই স্বাভাবিক ব্যপার।

সুতরাং এই লক্ষণগুলি অনুভব করলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। প্রেগন্যান্সি না হলেও শারীরিক অসুস্থতার জন্যও একবার চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। সুস্থ থাকুন। ভালো থাকুন।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here