মহরম সম্পর্কে মাইকেল মধুসুদন কি বলেছিলেন ??

0
80

নিজস্ব সংবাদদাতা (অর্পিতা ব্যানার্জি,১০/০৯/২০১৯)

সারা বিশ্ব জুরে পালিত হলো মহরম। ইসলাম ধর্মে শোকাবহ একটি দিন। ইসলামিক ক্যলেন্ডারের প্রথম মাস হল মহরম। এই মাসের ১০ তারিখ দিনটিকে বলা হয় আশুরা। বিশ্বের সমগ্র মুসলিমদের কাছে এই দিনটির গুরুত্ব অপরিসীম। এই দিনে ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক হজরত মহম্মদ(সা.) এর নাতি মহম্মদ হোসেন ইরাকের কারবালা মরুভুমির প্রান্তরে সহসিত খলিফা এজিদের রক্তপিপাসু বাহিনির দ্বারা নির্মম ভাবে স্ব-পরিবারে নিহত হন। অসুভ শক্তির কাছে শুভ শক্তির এই পরাজয় সারা বিশ্বের কাছে অতন্ত্য বেদনাদায়ক শোকাবহ দিন হিসাবে স্মরণীয় হয়ে আছে।

কারবালার প্রান্তরে ঐতিহাসিক বিয়োগান্তক ঘটনার স্মরণে বিশ্বের ইসলাম ধর্মের সকল মানুষ আজ যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ পরিবেশে পবিত্র আশুরা পালিত করছেন। বহু ঐতিহাসিক ঘটনা এদিন সংঘটিত হয়েছিল।ইসলামী চিন্তাবিদদের মতে, আশুরা হল ইসলামের একটি ধর্মীয় গুরুত্বপূর্ণ দিবস। এটি প্রতি হিজরি সনের মহররম মাসের দশ তারিখে পালিত হয়।আরবিতে ‘আশারা’ মানে ১০। আর সে কারণে দিনটিকে আশুরা বলে অভিহিত করা হয়। মহররমের ৯ তারিখ রাত থেকে আশুরা পালন শুরু হয়।

আরও পড়ুন… ভারতে এসে রাজনৈতিক আশ্রয় নিতে চান’ এরমই দাবি করলেন পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়ারের বিধায়ক বলদেব কুমার…

এই দিনে পৃথিবীর প্রথম মানুষ হজরত আদমকে সৃষ্টি করা হয়েছিল।শিয়া সম্প্রদায়ের কাছে এ দিনটি বিশেষ মর্যাদাপূর্ণ। কেননা এই দিনে হজরত মুহাম্মদের দৌহিত্র ইমাম হোসাইন ইসলামের তৎকালীন শাসনকর্তা এজিদের সেনাবাহিনীর হাতে কারবালার প্রান্তরে শহীদ হয়েছিলেন।১০ মহররম তারিখে আসমান ও জমিন সৃষ্টি করা হয়েছিল।এই দিনে বহু মুসলিম সম্প্রদায়ের একটি গোষ্ঠী বিভিন্ন স্থান থেকে তাজিয়া মিছিল বের করে।ধর্মপ্রাণ অনেক মুসলমান আজ রোজা রেখেছেন।
মাইকেল মধুসুদন দত্ত এই মহরমকে নিয়ে একসময় বলেছিলেন ” মহাকাব্য লিখিবার উপযোগী একটি বিষয়ে রহিয়া গেল – সে মুসলমানদের মহরম। জগতে এমন করুণ রসাত্নক বিষয় আর নাই। হিন্দুদের মহাভারতে ‘অভিমন্যু-বধ’ যেমন একটি করুণ রসের প্রসবণ, মুসলমানদের মহরম তদপেক্ষা আরো অধিকতর করুণ রসের মহাসমুদ্র। যদি কেহ লিখিতে পারেন, পরম উপাদেয় হইবে”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here