জানেন কি ডিমের খোসাতেও রয়েছে অনেক উপকারিতা?

0
309

জানেন কি ডিমের খোসাতেও রয়েছে অনেক উপকারিতা?

সংবাদটিভি অয়েবপেজ

খাওয়ার পাতে ডিম খেতে ভালবাসেন না এমন মানুষ খুব কমই আছে।ডিম খেতেও যেমন ভাল, তেমনই স্বাস্থ্যকর।অনেকেই শরীরের গাঁটে গাঁটে ব্যাথায় নাজেহাল। ওষুধেও মেলে না সুরাহা।কিন্তু হাতের সামনে ডিমের খোসা থেকে মুক্তি পেতে পারেন গাঁটের ব্যাথা থেকে। ডিমের খোসাও খুবই উপকারী।শুধু গাঁটের ব্যাথাই নয় দৈনন্দিন জীবনের আরও অনেক সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়া যায় ডিমের খোসা থেকে। জেনে নিন ডিমের খোসার মধ্যে কি কি উপকারিতা রয়েছে।প্রথমত,গাঁটের ব্যথা বা জয়েন্ট পেইন কমাতে একটি পাত্রে অ্যাপল সিডার ভিনিগারের সঙ্গে একটা গোটা ডিমের খোসা ভাল করে গুঁড়ো করে মিশিয়ে নিন। এটাকে অন্তত ২-৩ দিন রেখে দিলে দেখবেন, ডিমের খোসাগুলি ভিনিগারের সঙ্গে একেবারে মিশে গিয়েছে। এই মিশ্রণ দিয়ে ব্যথার জায়গায় আলতো করে চাপ দিয়ে মালিশ করুন। ডিমের খোসায় থাকে কোলাজেন, গ্লুকোসামিন, হায়ালুরোনিক অ্যাসিড যা ভিনিগারের সঙ্গে মিশে ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।আবার, সাধের ফুলের বাগানে বার বার পোকার উপদ্রবে গাছ নষ্ট হচ্ছে? গাছের গোড়ায় গোড়ায় ডিমের খোসা গুঁড়ো করে ছড়িয়ে দিন। পোকা-মাকড় গাছের ধারে কাছেও ঘেঁষবে না।এছারাও,
কফির তিক্ত ভাব কমাতে কফির সঙ্গে ডিমের খোসার গুঁড়ো এক চিমটে মিশিয়ে দিন। কফি গুলিয়ে নেওয়ার পর একটু সময় দিন। ডিমের খোসার গুঁড়ো থিতিয়ে নীচে পড়ে যাবে আর কফির তিক্ত স্বাদও অনেকটাই কমে যাবে।ত্বকের কালচে ভাব কাটাতে, ১টা ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে একটা বা দু’টো ডিমের খোসা ভাল করে গুঁড়ো করে মিশিয়ে নিন। এ বার ওই প্যাক মুখে ১৫ মিনিট মতো লাগিয়ে রেখে উষ্ণ জল দিয়ে আলতো ঘষে ধুয়ে ফেলুন! এতে ত্বকের কালচে ভাব কেটে যাবে।আরও পরুনঃচলুন রহস্যের অন্বেষণে মন্দিরের প্রদেশ উড়িষ্যায়……

ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল, প্রাণবন্ত! এই প্যাক নিয়মিত ব্যবহার করতে পারলে (সপ্তাহে ২ বারের বেশি নয়), ব্রণর সমস্যা থেকেও মুক্তি পাওয়া সম্ভব।এরকমই নিত্য ব্যবহার যোগ্য প্রচুর জিনিস আমরা ফেলে দিই। অথচ ডিমের খোসার মতন বহু জিনিস রয়েছে যা হয়তো আপনার কোনো না কোনো প্রয়জনে লেগে যেতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here