“ঠোঁটে ঠোঁট রেখে ব্যারিকেড কর প্রেমের পদ্যটাই….”

0
833

নিজস্ব প্রতিনিধি ১০.০৯.২০২০:সারাদিন কত পরিশ্রম করে বলুন তো ওষ্ঠ আর অধর! পরস্পর এক হয়ে আমাদের সারাদিনের হাসি-বকবকম তো সামলায় এরাই। তাই ঠোঁটের যত্ন না নিলে বিম্ব ফলের মতো টসটসে একজোড়া ঠোঁট পাবেন কোত্থেকে? হাত-পা-কনুই-গোড়ালি এবং মুখের মতো একই ভাবে ঠোঁটের যত্ন অনেকসময় নেওয়া হয় না বলেই ঝকঝকে মুখে ফাটা ঠোঁট  ভীষণ ভাবে চোখে বেঁধে। অনেকেরই সৌন্দর্য ম্লান হয়ে যায় কালচে ঠোঁটের জন্য। গোলাপ পাপড়ির মতো গোলাপি আভার পেলব ঠোঁট পেতে গেলে তাই এর পেছনেও সময় দিতে হবে আপনাকে।  সহজ, ঘরোয়া কিছু টিপস মেনে—–

ঠোঁটের যত্ন নিতে আমন্ড অএল এর জুড়িদার নেই।  দিনে দু-তিনবার একফোঁটা করে আমন্ড অয়েল নিয়ে ঠোঁটে মাসাজ করুন। হাতেগরম ফল পাবেন।

ঠোঁটের যত্নে এই উপকরণগুলি একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। তারপর এয়ারটাইট শিশিতে রেখে দিন-

৫০ গ্রাম মধু
২০ গ্রাম বা ৪ চা-চামচ চিনি
৫ মিলি গোলাপ জল
৫ মিলি ভ্যানিলা এসেন্স

কীভাবে বানাবেন: সমস্ত উপকরণ একসঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিন। রোজ দিনে একবার ঠোঁটের মরা কোষ তুলতে স্ক্রাবার হিেবে ব্যবহার করুন।

মধু ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখে প্রাকৃতিক ভাবেই।  চিনি মরাকোষ সরিয়ে ঠোঁকে করে নরম, মোলায়েম। আর এই দুই উপকরণ একসঙ্গে হলে ঠোঁট গুলাবি আপনা থেকেই!

ফাটা ঠোঁট সারাতে

শীত-গ্রীষ্ম-বর্ষা, সারাবছরই অনেকে ফাটা ঠোঁটের সমস্যায় ভোগেন। আর তাতেই অর্ধেক সৌন্দর্য মাটি। সমাধান চাইলে, গলানো মাখন সারারাত ঠোঁটে লাগিয়ে ঘুমান। পরপর ৩-৪ দিন করলেই দেখবেন, ঠোঁট চুঁইয়ে গ্ল্যামার ঝরছে। মাখলের বদলে মধুও ব্যবহার করতে পারেন। একই ফল পাবেন। গরম পানীয় চুমুক দেওয়ার অভ্যেস থাকলে আজই তা বন্ধ করুন। 

কালচে ঠোঁটে গোলাপি আভা

কালচে ঠোঁট কারই বা ভালো লাগে? এই সমস্যায় আপনি বিব্রত হলে প্রথমেই রোজ গাঢ় শেডের লিপস্টিক লাগানো বন্ধ করুন। তা বলে অনুষ্ঠান বাড়িতেও কি ঠোঁট রাঙাবেন না! তা কেন? সাজে পূর্ণতা আনতে অবশ্যই ঠোঁট রঙিন হোক। তবে সারাক্ষণ নয়। সব সময় ঠোঁট লিপস্টিকে ঢাকা থাকলে ত্বক শ্বাস নিতে পারবে না। আর তা পারলেই তা অক্সিজেনের অভাবে কালচে দেখাবে। 

ঠোঁটের কালচে ভাব কমাতে:

৩ চামচ করে নীচে বলা উপকরণ মিশিয়ে বোতলে ভরে রাখুন রোজের ব্যবহারের জন্য-

নারকেল তেল
আমন্ড অয়েল

কীভাবে ব্যবহার করবেন:

লিপ বামের বদলে এই মিশ্রণ সারাদিনে বেশ কয়েকবার ব্যবহার করুন।

সেই সঙ্গে ব্যবহার করুন লিপ মাস্ক—

উপকরণ:

২ চা চামচ আমন্ড পেস্ট
১ চা-চামচ আলু কোরা
আধখানা লেবুর রস
১ চা-চামচ ফ্রেশ ক্রিম

কীভাবে ব্যবহার করবেন:

সব উপকরণ ভালো করে মিশিয়ে ঠোঁটের ওপর পেস্টের মতো করে লাগান।
মিনিট দশেক রেখে জল দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিন।
সপ্তাহে ২-৩ বার ব্যবহার করলে ১৫ দিনের মধ্যে হারানো জেল্লা ফিরে পাবেন।

ঠোঁটের কিনারা কালচে হলে

ঠোঁট কালচে না হলেও অনেকেরই ঠোঁটের বর্ডারলাইন বা কিনারা কালচে হয়। এটাও বাঞ্ছনীয় নয়। এই সমস্যা কমাতে সবার আগে ঠওঁট কামড়ানো বা জিভ বোলানোর অভ্যেস কমান। এরপর একটি পাত্রে ঠাণ্ডা দুধের সর নিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে সেটা ঠোঁটে লাগান। দিনে ৩-৪ বার করলে এক সপ্তাহে কালচে ভাব গায়েব।

যাঁদের ঠোঁটের কোণা ফাটে…

ব্যথা-জ্বালায় অস্থির হন তাঁরা। বাড়তি উপদ্রব সৌন্দর্যহানি। দুধের সর আর ঠাণ্ডা জলের সেঁক এই সমস্যার সমাধান। দিনে ২-৩ বার দুধের সর মাসাজ করলে আর ঠাণ্ডা জলের সেঁক দিলে আরাম পাবেন। সমস্যাও কমবে।

নিয়মিত এই টিপস মানলে আপনি চুপ থাকলেও কথা বলবে, অন্যের নজর কাড়বে আপনার ঠোঁট।        


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here