জেনে নিন কামারপুকুরে সবচেয়ে প্রাচীন এই পুজোর খুঁটিনাটি…

0
35

নিজস্ব প্রতিবেদন (দেবস্মিতা ঘোষ)১০.১১.২০২০:

রামকৃষ্ণদেবের চিকিৎসক ছিলেন রামতারক গুপ্ত। তাঁর পরিবারের কালীপুজো ৩০০ বছর পেরিয়ে গিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা মনে করেন, কামারপুকুর এলাকার সবচেয়ে প্রাচীন এবং জাগ্রত শ্রীপুরের বৈদ্যবাড়ির কালী। মা এখানে চামুণ্ডা রূপিনী। মায়ের পা, কোমর শিকল দিয়ে বাঁধা থাকে। প্রচলিত নিয়মে, পুজোর দিন কোনও মহিলা লালপাড় শাড়ি, পায়ে আলতা এবং নূপুর পরে মায়ের পূজা দিতে পারবেন না। মা তাতে অসন্তুষ্ট হন বলে মনে করা হয়। মা রুষ্ট হলে ওই পরিবারে ঘনিয়ে আসে মহা বিপর্যয়, এমনটাই বিশ্বাস। তাই অত্যন্ত নিষ্ঠা সহকারে এই কালীপুজো করা হয়।তিনশত বছরের প্রাচীন রামকৃষ্ণদেবের চিকিৎসক পরিবারের কালীপুজো। পরিবারের সদস্যদের মতে – তারা বৈদ্য ব্রাহ্মণ।

পূর্বপুরুষ রামতারক গুপ্ত ছিলেন ঠাকুর রামকৃষ্ণদেবের চিকিৎসক। তাঁর আমল থেকেই এই পুজো শুরু।এই কালীপুজোয় বেশ কিছু নিয়ম আছে যা অন্য কোথাও আছে বলে তাদের জানা নেই। যেমন মায়ের মূর্তিতে ঠোঁটের এক কোণে রক্ত এবং লাল পাড় আঁকা থাকে। পরিবারের সদস্যদের মতে মা এখানে নির্জনতা পছন্দ করেন। তাই ওই মন্দিরে শুধু একটা ল্যাম্প আর মোমবাতি জ্বালানো হয়। কোনো মাইক্রোফোন বা লাউড স্পিকার বাজানো হয় না। বাজনা বলতে শুধু ঢাকের বাদ্যি। মাকে এখানে চেন দিয়ে কোমর বেঁধে রাখার নিয়ম, এছাড়া এই পরিবারে একাসনে পূজা। রাত বারোটায় পুজো শুরু হয়, একেবার ভোর রাতে পুজো শেষ করে সুতো কেটে পুরোহিত উঠবেন। এরপর শুরু হয় বলি। ছাগল, আখ, ছাঁচি কুমড়ো বলি হয়। অনেকেরই মানত থাকে। এরপর সন্ধ্যায় স্বপ্নে দেখা এক স্থানীয় পুকুরে মায়ের প্রতিমা নিরঞ্জন করে আবার কাঠামো নিয়ে আসা হয় মন্দিরে। আর মায়ের প্রতিমা কোনো ছাঁচে হয় না। বংশপরম্পরায় এই মূর্তি বানানো হয়। বংশপরম্পরায় পুজোও করে আসছেন চট্টোপাধ্যায় পরিবার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here