আপনি কি সরকারি চাকুরে তাহলে এই প্রতিবেদন আপনারই জন্য

0
1321

নিজস্ব প্রতিবেদন (পল্লবী সান্যাল) ২৩.০৯.২০২০ : পুজোর মুখে সরকারি কর্মচারীদের মুখে হাসি ফোটাল স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইবুনাল(স্যাট)। আগামী ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে সরকারকে তার কর্মীদের যাবতীয় বকেয়া মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সংগঠনটি। এর আগে রাজ্য স্যাটের ডিএ সংক্রান্ত নির্দেশ না মানায় দায়ের হয়েছিল আদালত অবমাননার মামলা। ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ কার্যকর হওয়ার আগেই ২০০৬ থেকে সরকারি কর্মীদের পাওনা মহার্ঘ ভাতা মিটিয়ে দেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। ৩ বছর পর ২০১৯-এর ২৬ জুলাই রাজ্যকে দেওয়া স্যাটের নির্দেশ অনুযায়ী ৬ মাসের মধ্যে সরকারি চাকুরেদের বকেয়া মিটিয়ে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু রাজ্য তা না করায় আইনের দ্বারস্থ হয় স্যাট। রাজ্য আবার পুনঃরায় স্যাটে রিভিউ পিটিশন দায়ের করে। যার শুনানি শেষ হয় গত ৩ মার্চ। রাজ্য রায় বিবেচনার আর্জি জানালে আদালত রাজ্যের আবেদন খারিজ করে দেয়। এরপর ষষ্ঠবেতন কমিশন চালু হলেও বকেয়া ডিএ না মেটানোর কথা জানায় রাজ্য। করোনা পরিস্থিতির কারণে আগামী দেড় বছর কেন্দ্র প্রথমে ডিএ না বাড়ানোর কথা জানিয়েছিল। তবে বছরের প্রথম দিনে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে সরকারি কর্মীদের জন্য ৪ শতাংশ ডিএ বৃদ্ধির ঘোষণা করা হয়েছিল। এর ফলে রাজ্যের সরকারি কর্মীদের বকেয়া মহার্ঘ ভাতা ২১ শতাংশে পৌঁছয় বলেই দাবি বিভিন্ন কর্মচারী সংগঠনের।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে স্যাট যে রায় দিয়েছিল তাতে বলা হয়, ডিএ দেওয়া বা না দেওয়াটা রাজ্যের ঐচ্ছিক বিষয়। স্যাটের সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে ওই বছরই ৩০ মার্চ কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয় সরকারি কর্মচারিদের সংগঠন। এর পরে ২০১৮ সালের ৩১ অগস্ট কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি দেবাশিস করগুপ্ত ও বিচারপতি শেখর ববি শরাফের ডিভিশন বেঞ্চ রায়ে জানায়, ডিএ সরকারি কর্মীদের অধিকার। এর পরেই রাজ্য সরকার ওই রায় পুনর্বিবেচনার জন্য একটি রিভিউ পিটিশন দাখিল করে ডিভিশন বেঞ্চে। ২০১৯-এর ৭ মার্চ হাইকোর্টের বিচারপতি হরিশ টন্ডন ও বিচারপতি শেখর ববি শরাফের ডিভিশন বেঞ্চ রাজ্যের দায়ের করা রিভিউ পিটিশন খারিজ করে দেয়। জুলাইয়ে রায় ঘোষণার পরেও ডিএ মেটানো নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। এবার ফের একবার স্যাট জানিয়ে দিল, রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের বকেয়া ডিএ দিতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here