অফিসের দরজায় নোটিশ সাঁটানোর পর সোজা ভাঙচুর ! আইনের পথে কঙ্গনা

0
8846

নিজস্ব প্রতিবেদন (পল্লবী সান্যাল) ৯.০৯.২০২০ : বেআইনি নির্মাণের অভিযোগে মণিকর্ণিকা ফিল্মসের অফিসের দরজায় মঙ্এগলবারই কটি নোটিশ সাঁটিয়ে এসেছিলেন বৃহন্মুম্বই কর্পোরেশনের কনস্ট্রাকশন বিভাগের আধিকারিকরা। অভিযোগের প্রেক্ষিতে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে জবাব চাওয়া হয়েছে কঙ্গনা রানাওয়াতের কাছে। হিমাচল প্রদেশ থেকে মুম্বইয়ের পথে রওনাও হন। কিন্তু মুম্বইয়ের মাটিতে তিনি পা রাখার আগেই শুরু হয় অফিস ভাঙার কাজ। জেসিবি মেশিন দিয়ে মণিকর্ণিকা ফিল্মসকে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করার কাজ জোরকদমে চলছে খবর পেয়ে বোম্বে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন কঙ্গনার আইনজীবী। বিএমতির তরফে ভাঙার নির্দেশের বিরুদ্ধে আদালতে রিট পিটিশন দাখিল করেন তিনি। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২ টা নাগাদ ওই মামলার শুনানি ছিল। আদালত ভাঙচুরের ওপর স্থগিতাদেশ জারি করলেও তার আগেই ভেঙে ফেলা হয় বেআইনি নির্মাণের অংশটুকু। এই ঘটনায় বিএমসির কাছে জবাব দিহিও চতাওয়া হয়েছে আদালতের তরফে। এদিকে নোটিশ সাঁটানোর পর তাঁর সংস্থার বিরুদ্ধ ওঠা অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেছেন কঙ্গনা। এরপর অফিস ভাঙার ঘটনায় ট্যুইটারে ক্ষোভ উগড়ে দেন তিনি।

এদিন সকল ১০ টা ১৯ মিনিট নাগাদ প্রথম ট্যুইটে কঙ্গনা লেখেন, ‘বিমানমন্দরের পথে। মুম্বই দর্শনের জন্য প্রস্তুত। মহারাষ্ট্র সরকার ও সরকারের গুন্ডারা যেমন বেআইনি নির্মাণের অভিযোগ এনে অবৈধভাবে আমার সম্পত্তি ধ্বংস করার জন্য প্রস্তুত, আমিও তেমন মহারাষ্ট্রের গর্ব ধরে রাখার জন্য রক্ত দিতে প্রস্তুত। যদিও এটা কিছুই নয়। তবে, আমার আত্মা আরও বড় হবে। এ ছাড়াও একের পর এক ট্যুইটে তিনি লেখেন, ‘মণিকর্ণিকা ফিল্মসে অযোধ্যা সিনেমার ঘোষণা হল। এই অফিস আমার কাছে রাম মন্দির। আজ বাবর বাহিনীর পা পড়েছে। ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হবে। আরও একবার রাম মন্দির ভাঙাও হবে। কিন্তু ম এই মন্দির পুনঃরায় তৈরি হবে। জয় শ্রীরাম, জয় শ্রীরাম, জয় শ্রীরাম।’

তিনি কোনও ভুল কাজ করেননি বলে সুর চড়িয়েছেন অবিনেত্রী। ট্যুইটারে লেখেন, ‘আমার শত্রুরা বারবার প্রমাণ করছে যে আমার মুম্বই এখন পাক অধিকৃত কাশ্মীর। গণতন্ত্র মৃত। আমার বাড়িতে কোনও বেআইনি নির্মাণ হয়নি। ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সরকার সমস্ত রকম ভাঙার কাজে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল।এবার বলিউড দেখুক ফ্যাসিজম কাকে বলে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here